শিরোনামঃ

শান্তি চুক্তি বাস্তবায়নসহ আঞ্চলিক পরিষদের সাথে আলোচনাক্রমে উন্নয়ন কার্যক্রম গ্রহনের আহবান ঊষাতন তালুকদার এমপির

সিএইচটি টুডে ডট কম, রাঙামাটি। রাঙামাটি ২৯৯ আসনের সংসদ সদস্য ও পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির সহ সভাপতি উষাতন তালুকদার এমপি DSC00359বলেছেন, ১৮ বছর ধরে চুক্তি বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া ঝুলে আছে, সরকার পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ ও জেলা পরিষদ আইনকে অকার্যকর করে রেখেছে এমনবস্থায় চুক্তি বাস্তবায়ন না করে বড় ধরনের উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহন করলে এটি জনমতের বিপরীতে যাবে।
পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়ন না হওয়ায় এখানকার মানুষ নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছে। আন্দোলন রাজনৈতিক কর্মসুচী পালন করা সবার গনতান্ত্রিক অধিকার কিন্তু আন্দোলনকে বাধাগ্রস্ত করতে পাল্টা কর্মসুচী দেয়া অন্যর গনতান্ত্রিক অধিকারের উপর হস্তক্ষেপ করার সামিল।
তিনি আজ বিকালে রাঙামাটিতে তার কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সাথে আলোচনাকালে এসব কথা বলেন।
সম্প্রতি ১০ জানুয়ারী মেডিকেল কলেজের পাঠদান কার্যক্রম উদ্বোধনকে কেন্দ্র করে রাঙামাটিতে ঘটে যাওয়া অনাকাক্সিক্ষত ঘটনার পর এলাকায় স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠা, সৌহার্দ্য, সম্প্রীতি ও শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান নিশ্চিত করতে সব দলমত, জাতি, গোষ্ঠী, সম্প্রদায়, ধর্ম, বর্ণ
নির্বিশেষে সবাইকে আন্তরিকভাবে একযোগে এগিয়ে আসতে হবে বলে মত ব্যক্ত করেছেন।

উষাতন তালুকদার আরো বলেন, ঘটনার জন্য আমরা লজ্জিত। অনেক দুঃখ-কষ্ট পেলাম, ক্ষতিগ্রস্ত হলাম। এতে কার কী লাভ হল। ঘটনার চেয়ে গুজব অধিক ছড়ানোর ফলে শহরব্যাপী দ্রুত উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে বলে মন্তব্য করে ঊষাতন তালুকদার বলেন, সম্ভবত কিছু মহল ঘটনাটি নিয়ে উস্কানি দিয়ে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করেছিল। তাই তারা ঘটনাটিকে পূজি করে সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে পরিস্থিতি ঘোলাটে করার চেষ্টা করেছে।
১০ জানুয়ারি সৃষ্ট ঘটনায় আমরা অত্যন্ত উদ্বিগ্ন ছিলাম। কিন্তু সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় পরিস্থিতি সামাল দিতে পেরেছি। এজন্য সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানিয়ে এমপি ঊষাতন বলেন, প্রশাসন অত্যন্ত আন্তরিক হয়ে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করেছে। আইনশৃংখলা বাহিনী সহনশীলতার সঙ্গে কাজ করেছে। শান্তিপ্রিয় সব মহল ও জনগোষ্ঠীর মানুষ এগিয়ে এসেছে সহনশীল হয়ে। ফলে আমরা দ্রুত পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে পেরেছি।

তিনি এসব যে কোনো পরিস্থিতিতে যাতে অনাকাক্সিক্ষত বড় ধরনের কোনো অঘটন বা বিপর্যয় ঘটতে না পারে সেজন্য গুজবে কান না দিয়ে এবং সব সময় একে অপরের প্রতি সহনশীল হয়ে এলাকাবাসী সবাইকে যার যার ঘরে নীরবে অবস্থান করার আহবান জানান।

এলাকাবাসীর প্রতি আহবান জানিয়ে ঊষাতন তালুকদার আরো বলেন, আপনারা আমার ওপর আস্থা রাখুন। আমি আপনাদের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি। এলাকার ভালো-মন্দের দায়ভার আমার ওপর বর্তায়। আমি এখানে বসবাসরত সব সম্প্রদায় ও জনগোষ্ঠী মানুষের স্বার্থ সমুন্নত রেখে কাজ করার চেষ্টা করব। আমি কাউকে বঞ্চিত করে কোনো কিছুই করব না।

তিনি সরকারের প্রতি এলাকার শান্তিশৃংখলাসহ বৃহত্তর স্বার্থে আপাতত রাঙামাটি মেডিকেল কলেজের কার্যক্রম স্থগিত রাখার আহবান জানিয়ে বলেন, যা করার সব পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে শান্তিপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিতে হবে। এখানে পার্বত্য চুক্তি অনুযায়ী বিশেষ শাসন ব্যবস্থা প্রচলন, আঞ্চলিক পরিষদ ও তিন পার্বত্য জেলা পরিষদকে কার্যকর করতে হবে।
তিনি আন্দোলন কর্মসুচীকে সম্প্রদায়িকভাবে না দেখার আহবান জানান। তিনি আন্দোলন হয় কারো বিরুদ্ধে নয় সরকারের কাছে দাবী আদায়ের জন্য।

শান্তি চুক্তি বাস্তবায়নের আল্টিমেটাম সর্ম্পকে উষাতন তালুকদার বলেন, জনসংহতি সমিতি তো অসহযোগ আন্দোলনের ঘোষনা দিতে চায়নি, তারা চুক্তি বাস্তবায়নে সরকারের কাছে রোড ম্যাপ চেয়েছিল, কিন্তু সরকার চুক্তি বাস্তবায়নে রোড ম্যাপ ঘোষনা না করায় জেএসএস অসহযোগ আন্দোলনের ঘোষনা দিয়েছে। জনসংহতি সমিতির আল্টিমেটামের কারনে ইতিমধ্যে ৯ জানুয়ারী সরকারের প্রধানমন্ত্রীর আর্ন্তজাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভীর সাথে আমাদের লিডার সন্তু লারমার বৈঠক হয়েছে। সরকার আন্তরিক হলে পুনাঙ্গ চুক্তি বাস্তবায়ন সম্ভব হবে।

উল্লেখ্য, ১০ জানুয়ারি রাঙামাটি মেডিকেল কলেজের পাঠদান কার্যক্রম উদ্বোধনকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট ঘটনায় শহরে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে রাঙামাটির পরিস্থিতি। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে জেলা প্রশাসক মো. সামসুল আরেফিন ওইদিন শহরে ১৪৪ ধারা জারি করলেও অবনতির দিকে চলে যাওয়ায় ১১ জানুয়ারি সন্ধ্যায় আবার শহরে সান্ধ্য আইন জারি করেন জেলা প্রশাসক। পরে পরিস্থিতির উত্তরণ ঘটলে ১৩ জানুয়ারি সকাল ৭টায় সান্ধ্য আইন এবং ১৪ জানুয়ারি দুপুরে ১৪৪ ধারা প্রত্যাহার করে নিয়েছে প্রশাসন। বর্তমানে পরিস্থিতি অনেকটা প্রায় পুরোপুরি স্বাভাবিক হয়ে এসেছে।

 

Print Friendly, PDF & Email

Share This:

খবরটি 981 বার পঠিত হয়েছে


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*
*

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.

ChtToday DOT COMschliessen
oeffnen