শিরোনামঃ

রাঙামাটি কৃষি প্রশিন ইনষ্টিটিউট প্রতিষ্ঠার ৬ বছরেও জাতীয় স্বীকৃতি পায়নি

রাঙামাটি প্রতিনিধি। পার্বত্য তিন জেলা রাঙামাটি খাগড়াছড়ি এবং বান্দরবানের একমাত্র কৃষি প্রশিন ইনষ্টিটিউট রাঙামাটি কৃষি প্রশিন ইনষ্টিটিউ প্রতিষ্ঠার ৭ বছরেও সরকারী স্বীকৃতি পায়নি। দ জনবল, শিক সংকট, পরিবহন সংকট, আবাসিক হোষ্টেলগুলোতে পানি সংকটসহ নানা সমস্যায় জর্জরিত প্রতিষ্ঠানটির নিজস্ব বলতে কিছু নাই।

Picture2

রাঙামাটি শহর থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার দুরে ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে ২৪ একর জমির উপর ২০০৬ সালে কৃষি প্রশিন ইনষ্টিটিউটটি উদ্বাধন করেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া। কৃষি সম্প্রসারণের কৃষি প্রশিণ ইনষ্টিটিউট প্রকল্প, রাঙামাটি’র তত্ত্বাবধানে প্রায় ২৪ একর জায়গার ওপর নির্মিত এ প্রশিণ ইনষ্টিটিউটের মোট আসন সংখ্যা চারশ’। জেলা ভিত্তিক কোটা অনুযায়ী    প্রতিবছর ১০০ জন ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করা হবে। এর মধ্যে দূরশিণে ১০ জন এবং মুখোমুখী ব্যবস্থায় রাঙামাটি জেলা হতে ৩৪ জন, খাগড়াছড়ি জেলা হতে ৩৪ জন এবং বান্দরবান জেলা হতে ২২ জন ছাত্র-ছাত্রী ভর্তির সুযোগ রয়েছে। আবার ১০০ আসনের মধ্যে মহিলাদের জন্য ১০ শতাংশ, উপজাতীয়দের জন্য ৫ শতাংশ, মুক্তিযোদ্ধা পোষ্যদের জন্য ২ শতাংশ হারে সংরতি রেখে সাধারণ মেধা কোটায় ৮৩ শতাংশ ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করা হয় প্রতি বছর।  ইনষ্টিটিউটের পৃথক দুটি আবাসিক হোস্টেলে ৮৮ জন ছাত্র এবং ৪৪ জন ছাত্রীর আবাসন ব্যবস্থা রয়েছে।

এদিকে কৃষি প্রশিন ইনষ্টিটিউটটি প্রতিষ্ঠার পর থেকে গত ৬ বছরে ১ জন এবং ১জন কর্মচারীও নিয়োগ করতে পারেনি। কৃষি বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা এবং চট্রগ্রাম থেকে আসা প্রশিকরা কাশ করান তাদের মাস শেষে যৎসামান্য সম্মানী দেয়া হয়। শিক ও কর্মচারী সংকটে এবং সরকারী স্বীকৃতি না পাওয়ায় শিার্থী এবং অভিভাবকরা রয়েছেন দুশ্চিন্তায়। শিার্থীরা শিক সংকট, পানি,যাতায়ত, লাইব্রেরী না থাকাসহ বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের দাবী জানিয়েছেন। প্রশিন ইনষ্টিটিউটের আবাসিক হোষ্টেল ঘুরে দেখা গেছে সেখানে ময়লা আর্বজনা দুর্গন্ধ হয়ে পড়ছে হোষ্টেলের আবাসিক কগুলো বাথরুমের অবস্থা খুবই খারাপ। ডাইনিং টেবিল এবং কিচেন রুম এত নোংরা যে খাওয়ার পরিবেশ নেই। শিার্থীরা নিজ শয়ন রুমে গিয়ে খাবার খায়।

এ প্রসঙ্গে আবাসিক হোষ্টেলের ছাত্র প্রনয় মারমা বলেন হোষ্টেলে খাবার পানির অভাবে আমাদেরকে প্রায় সময় খাবার পানি আনতে অনেক দুরে গ্রামে যেতে হয়। হোষ্টেলটি পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য এখানে প্রচুর জনবলের অভাব রয়েছে। ইনষ্টিটিউটের শেষ বর্ষের ছাত্র সোহেল রানা জানান, এখানে নানাবিধ সমস্যা আছে।এ কলেজে যাতায়াতের সমস্যাটা খুবই করুন। এখানে টিউবওয়লের যে পানি রয়েছে তার গুনগত মান নিম্নমানের যা পান করার অযোগ্য। আমাদের এখানে নিজস্ব কোন ক্যান্টিন নেই। এখানে লাইব্রেরী আছে, কিন্তু কোন লাইব্রেরীয়ান নাই। শিার কাজে ব্যবহার করা যায় এই রকম প্রচুর সরঞ্জাম আছে কিন্তু এগুলো দেখাশোনা করার জন্য কোন লোকবলের অভাব রয়েছে। এসব সমস্যার কারনে অন্যান্য ইনষ্টিটিউটের তুলনায় এখানে শিার গুনগত মান খুব কম । এ প্রসঙ্গে ইনষ্টিটিউটের ছাত্রী শাহিদা সুলতানা বলেন- এখানে আমাদের যে পরিমান মৌখিক এবং প্রাকটিক্যাল কাস হওয়া প্রয়োজন ওই পরিমানে কাস এখানে হচ্ছে না। এখানে মাঠ পর্যায়ে আমাদেরকে কোন প্রশিনও দেয়া হয় না।

রাঙামাটি কৃষি প্রশিন ইনষ্টিটিউট অধ্য জানান, আমরা সরকারী কোন অনুদান পাই না নানা সংকটে প্রতিষ্ঠানটি চালিয়ে যাচ্ছি। পরিবহন সংকট প্রচুর কর্তৃপকে জানিয়েছে কিন্তু সুরাহা হয়নি। হোস্টেল অপরিস্কার সর্ম্পকে তিনি বলেন, আমাদের সুইপার নেই শিার্থীদের বলেছি পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে। সরকারকে সমস্যার কথা জানিয়েছে কিন্তু যতন প্রতিষ্ঠানটি রাজস্ব খাতে না যাবে ততদিন কিছু করার থাকবে না।

Print Friendly, PDF & Email

Share This:

খবরটি 150 বার পঠিত হয়েছে


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*
*

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.

ChtToday DOT COMschliessen
oeffnen