শিরোনামঃ

রাঙামাটির ইউপি নির্বাচন দলগুলোর জন্য প্রেষ্টিজ ইস্যু !

সিএইচটি টুডে ডট কম, রাঙামাটি। রাঙামাটির ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীদের বিজয় করতে আওয়ামীলীগের নির্বাচনী টীম উপজেলা, ইউনিয়নে প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছে। সব কয়টি ইউনিয়নে প্রার্থী দিতে না পারলেও বাঙ্গালী অধ্যুষিত এলাকাগুলোতে নিজ প্রার্থীর বিজয়ী ছিনিয়ে নিতে তৎপর আওয়ামীলীগ। আজ বৃহস্পতিবার রাত ১২টায় শেষ হচ্ছে নির্বাচনী প্রচারনা। কাল শুক্রবার EC_Logo_বিরতি দিয়ে ৪জুন শনিবার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

রাঙামাটিতে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে জাতীয় ও আঞ্চলিক দলগুলোর মধ্যে বিরোধ বাড়ছে, অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার, চাদাবাজ ও সন্ত্রাসীদের প্রেফতারের দাবিতে তৃতীয় ধাপ থেকে রাঙামাটির ইউপি নির্বাচন ৬ষ্ঠ ধাপে ৪জুন আনা হয়। এতে ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থীর সংখ্যা বাড়লেও আঞ্চলিক দলগুলোর হুমকি ধামকি এবং নিরাপত্তার কারনে প্রার্থীরা শহরে অবস্থান করছে বলে জানিয়েছে আওয়ামীলীগ। ২১ মে প্রধান নির্বাচন কমিশনার অবৈধ অস্ত্রধারীদের গ্রেফতারের নির্দেশ দিলেও রাঙামাটিতে আইন শৃঙ্খলাবাহিনী একটি অস্ত্রও উদ্ধার করতে পারেনি, এমতবস্থায় অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার না করায় প্রত্যন্ত এলাকায় সুষ্ঠ নির্বাচন নিয়ে শংকা প্রকাশ করেছে আওয়ামীলীগ। তবে নির্বাচন নিয়ে আশংকা প্রকাশ করলেও বাঙ্গালী অধ্যূষিত বিভিন্ন এলাকায় আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার, সাধারন সম্পাদক হাজী মুছা মাতব্বরসহ দলের জেলা নেতৃবৃন্দ সফর করছে এবং ভোটারদের কাছে গিয়ে ভোট প্রার্থনা করছেন।

জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক হাজী মুছা মাতব্বর ২৫ মে এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে পরিস্থিতির উন্নতি না ঘটলে ১লা জুন নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিলেও সেটি ঘোষনার মধ্যে রয়েছে। তিনি জানান, আমরা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষন করছি আমাদের অধিকাংশ প্রার্থী এখনো রাঙামাটি অবস্থান করছেন।111188

তবে অনেকের মতে প্রশাসনকে চাপের মধ্যে রাখতে আওয়ামীলীগের এমন ঘোষনা।

নির্বাচনে শেষ মুহুর্তে আওয়ামীলীগ মাঠে নামলেও বিএনপির নেতৃবৃন্দকে মাঠে দেখা যায়নি।
নির্বাচন নিয়ে জেলা বিএনপির সভাপতি হাজী শাহ আলম জানান, নির্বাচন পেছানোর কারনে আমাদের প্রার্থীরা সবচেয়ে মানসিক এবং আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। এই নির্বাচন কমিশনের অধীনে সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে না। তিনি আরো বলেন, প্রত্যন্ত এলাকায় আঞ্চলিক দল এবং শহর এলাকায় ক্ষমতাসীন দলের চাপের কারনে আমরা বেশীরভাগ ইউনিয়নে প্রার্থী দিতে পারিনি।

তিনি আরো জানান, আমরা পৌরসভা নির্বাচনের মত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে শংকিত ক্ষমতাসীনদল পৌর নির্বাচনের মত ইউপি নির্বাচনে আমাদের বিজয় ছিনিয়ে নিতে পারে।

আঞ্চলিক দলগুলোর বিরুদ্ধে অভিযোগের পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির কেন্দ্রীয় ষ্টাফ সদস্য উদয়ন ত্রিপুরা জানান, ৬ষ্ঠ ধাপের ইউপি নির্বাচনে জনসংহতি সমিতির কোন প্রার্থী নেই, জনগন যাকে চায় আমরা তার পক্ষে থাকব সুতরাং আওয়ামীলীগের অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। রাঙামাটির আওয়ামীলীগ জনপ্রিয়তার সংকটের ভুগছে, গত ৭ বছর এরা আঙুল ফুলে কলা গাছ হয়েছে নিজেরা কোটি কোটি টাকার সম্পদ বানিয়েছে জনগনের জন্য কাজ করেনি, তাই জনগনের কাছে যেতে ভয় পায়।

তবে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার, চাদাবাজি বন্ধ ও সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারের বিষয়ে রাঙামাটির অতিরিক্ত পুলিশ শাহিনুর আলম খান বলেছেন, কেবল মুখস্থ অভিযোগ করলে হবে না, সুনির্দিষ্ট অভিযোগ করতে হবে তাহলে আইন শৃঙ্খলাবাহিনী ব্যবস্থা নিবে।
তিনি আরো বলেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনারের নির্দেশনা মতে আমরা কাজ করছি।

জাতীয় এবং আঞ্চলিক দলগুলোর মধ্যে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ থাকলেও নির্বাচন উভয়ের জন্য প্রেষ্টিজ ইস্যু। ২০১৪ সনের ৫ জানুয়ারী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি বিহীন নির্বাচনে যেখানে আওয়ামীলীগ সারাদেশে এক ছেটিয়া আধিপত্যে ধরে রেখেছিল সেখানে রাঙামাটিতে জেএসএস প্রার্থীর কাছে প্রতিমন্ত্রী থাকা অবস্থায় হেরে যান দীপংকর তালুকদার। এরপর উপজেলা নির্বাচনে প্রায়ই চেয়ারম্যান পদে আঞ্চলিক দলগুলো আধিপত্যে ধরে রাখে। কেবল রাঙামাটি পৌরসভার মেয়র পদটি নিজেদের আয়ত্বে আনতে পারে। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন জাতীয় ও আঞ্চলিক দলগুলো নিজেদের আধিপত্যে ধরে রাখতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। আওয়ামীলীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি ছাড়াও কেবল জনসংহতি সমিতি, ইউপিডিএফ এবং জেএসএস সংস্কারের ৮২জন প্রার্থী রয়েছে।

রাঙামাটির দশটি উপজেলার মোট ৪৯টি ইউনিয়নে নির্বাচন হওয়ার কথা থাকলেও সীমানা বিরোধের কারনে আদালতের নির্দেশে চন্দ্রঘোনা ইউপি নির্বাচন স্থগিত করে নির্বাচন কমিশন। ৪৮টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে মোট ১৪৯জন নির্বাচন করছেন। এর মধ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থী স্বতন্ত্র ৮২, আওয়ামী লীগ ৪১, বিএনপি ২০, জাতীয় পার্টি (লাঙ্গল) ৪ এবং বাংলাদেশ ইসলামি আন্দোলনের (হাতপাখা) ২ প্রার্থী। স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্যে আঞ্চলিক দল জেএসএস এবং ইউপিডিএফ সমর্থিতদের সংখ্যা বেশি। অন্যদিকে আঞ্চলিক দলগুলোর দাপটে আওয়ামী লীগ ৭টি এবং বিএনপি ২৭টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে কোনো প্রার্থী দিতে পারেনি।

এছাড়া ৪৮টি ইউনিয়নে সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ৩৫৮জন, সাধারন ওয়ার্ডে সদস্য পদে ১,১২২জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ২৬জন এবং সাধারন ওয়ার্ডে ৮১জন, কাউখালী উপজেলার ফটিকছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন মোট ১০৮জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন।

দেখা গেছে, শেষ মুহূর্তের প্রচারণায় ব্যস্ত জেলার ৪৮টি ইউপির চেয়ারম্যান প্রার্থী। রাত দিন ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা। হাজির হচ্ছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। ভোটের জন্য ধরণা দিচ্ছেন ভোটারদের হাতে পায়ে। মুখে নানা প্রতিশ্রুতির ফুলঝুড়ি। যোগ্য ও পছন্দের প্রার্থীকে জেতাতে শেষ হিসাব মেলাচ্ছেন ভোটার ও পর্যবেক্ষক মহলও।
এদিকে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. নাজিম উদ্দিন জানিয়েছেন, ৪ জুন অনুষ্ঠেয় রাঙামাটি জেলার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠানের লক্ষে সব ধরনের প্রস্তুতি শেষ। এ জন্য নেয়া হয়েছে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা। ইতিমধ্যে হেলিকপ্টার করে দুর্গম উপজেলায় নির্বাচনী কর্মকর্তা, কর্মচারীসহ সরঞ্জামাদি পাঠানো হয়েছে। নির্বাচনী কাজে যাতায়াতের জন্য মোট ৫৩টি কেন্দ্রে হেলিকপ্টার ব্যবহার করা হবে। কেন্দ্রগুলোর মধ্যে রয়েছে বরকল উপজেলায় ১৫, জুরাছড়িতে ২০, বিলাইছড়িতে ১০ এবং বাঘাইছড়িতে ৮টি। যোগাযোগ দুর্গমতাসহ পানি পথে কাপ্তাই লেকের পানি শুকিয়ে যাওয়ায় ওইসব কেন্দ্রে হেলিকপ্টারের সাহায্যে নির্বাচনী কর্মকর্তা-কর্মচারী ও সরঞ্জামাদি আনা-নেয়া করতে হচ্ছে।
তিনি বলেন, ৪৮ ইউপিতে ৪৪৮ কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। প্রায় সবগুলো কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ। ইসির নির্দেশে ওইসব কেন্দ্রে সুষ্ঠু, অবাধ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠানে সর্বোচ্চ পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। প্রতিটি কেন্দ্রে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার থাকবে। নির্বাচনের আগের দুইদিন এবং পরের দুইদিন পর্যন্ত প্রতিটি কেন্দ্রে অতিরিক্ত নিরাপত্তাবাহিনী মোতায়েন থাকবে। ৪৮ ইউনিয়নে এবার মোট ভোটার রয়েছেন ৩ লাখ ২৩ হাজার ৮৭০। তন্মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৭০ হাজার ২৬৭ এবং মহিলা ১ লাখ ৫৩ হাজার ৬০৩ জন।

Print Friendly, PDF & Email

Share This:

খবরটি 435 বার পঠিত হয়েছে


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*
*

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.

ChtToday DOT COMschliessen
oeffnen